Press "Enter" to skip to content

পাকিস্তানের রেল মন্ত্রীর হুমকি, যুদ্ধ বাধলে ভারতের একটাও মন্দিরে বাজবে না ঘণ্টা!

পাকিস্থান শুধু একটা দেশ নয়, এটা একটা ইসলামিক আতঙ্কবাদী দেশ। পাকিস্থানের নির্মাণ হিংসার ভিত্তিতে হয়েছিল। আজ পাকিস্থান একটা পুরো বিশ্বে একটা দেশ হিসেবে নয়, একটা আতঙ্কবাদের আড্ডা হিসেব পরিচিত। পাকিস্থানের অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি কেমন সেটা কোনো সাধারণ ভারতীয় নাগরিক কল্পনাও করতে পারবে না। পাকিস্থানে জিহাদি গতিবিধি, হিংসা, ধার্মিক উগ্রবাদ, কট্টরতা ইত্যাদি খুবই সামান্য ব্যাপার। পাকিস্থানের পরিবেশ এতটাই জঘন্য যে সেখানের কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরাও আতঙ্কবাদীদের মতো ভাষা ব্যবহার করে।

কিন্তু তা সত্ত্বেও ভারতের কিছু বামপন্থী, বুদ্ধিজীবী, দালাল মিডিয়ার মতে পাকিস্থানের সাথে শান্তি বার্তা করা উচিত।ভারতের সেকুলারপন্থীরা তাদের সাথে শান্তি বার্তা করতে চাই যারা ধর্মের নামে দেশ ভাগ করে পাকিস্থান তৈরি করেছিল এবং আজও অবধি ধর্মের নামে আতঙ্কবাদ ছড়ায়। ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে বর্তমানের উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে পাকিস্থানের রেল মন্ত্রী শেখ রাশিদ আহমেদ ভারতকে হহুমকি দিয়েছেন।

আর হুমকি এমন সাম্প্রদায়িক ভাষা ব্যাবহার করে দিয়েছেন যা উনার মন্ত্রী হওয়ার পরিচয় বহন করে না। হুমকি শুনলে যে কেউ রাশিদ আহমেদকে জিহাদী জঙ্গি বলেই মনে করবে। এমনকি আতঙ্কবাদীরাও এমন সাম্প্রদায়িক শব্দ ব্যবহার করে না যেটা পাকিস্থানের রেল মন্ত্রী বলেছেন।

শেখ রাশিদ খান একটা ভিডিও প্রকাশ করে সেখানে বলেছেন যে পাকিস্থানকে ধ্বংস করে দেব, ভারতের একটাও পাখি বাঁচবে না, একটাও মন্দিরে ঘণ্টা বাঁচবে না। এখানে রাশিদ খান মন্দির শব্দ ব্যবহার করেন শুধুমাত্র নিজের সাম্প্রদায়িক হিংসাকে প্রকাশ করার জন্যে। পাঠকদের জন্য ভিডিওটি ওপরে দেওয়া হলো। ভিডিওটি দেখুন, লোকটি পাকিস্থানের মন্ত্রী নাকি আতঙ্কবাদী সেটাও বুঝতে পারবেন না। এর কারণ পাকিস্থানের মন্ত্রী হোক বা আতঙ্কবাদী সব এক মানসিকতার। এর জন্যই রাশিদী হুমকি দিচ্ছে যে ভারতের মন্দিরের ঘন্টাও বাঁচবে না।

6 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.