Press "Enter" to skip to content

যখন এক ছাত্র করলেন প্রশ্ন, রুশের রাষ্ট্রপতি পুতিন বললেন-জবাব দেওয়া কঠিন।

ভারতে ২ দিবসীয় সফরে আসা রুশের রাষ্ট্রপতি লাদিমির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাথে আইটিএস মর্য্যে আয়োজিত ইন্দো-রাশিয়া সামিতে অংশগ্রহণ করতে পৌঁছেছিলেন। এই সময় ভারতীয় ও রুশের ছাত্রের এক সমূহ প্রধানমন্ত্রী মোদী ও রাষ্ট্রপতি ের সাথে সাক্ষাত-বার্তা করেন। এই সময় এক ছাত্র পুতিনকে জিজ্ঞাসা করেন যে কোন বিজ্ঞানী আপনাকে সবথেকে বেশি প্রভাবিত করেছে? এর উত্তরে বলেন, এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়া কঠিন কাজ। কিন্তু এটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যে কোন বিজ্ঞানী মানবতার জন্য কাজ করেছে। বিজ্ঞান খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যখন এক রুশের ছাত্র প্রশ্ন করেন যে ব্রিকসের সাথে স্পেস করপোরেশন ব্যাপারে আপনার কি মত। উত্তরে রাষ্ট্রপতি বলেন আমরা এই ক্ষেত্রে সহযোগিতার জন্য প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেছি।

অন্যদিকে ইন্দো রাশিয়া বিজনেস সামিটকে সম্বোধিত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন রাষ্ট্রপতি পুতিনের নেতৃত্বে ভারত ও রাশিয়ার সম্পর্ক একটা নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে। আমরা নিজেরাও একে অপরের সাথে দেখা করার কোনো সুযোগ ছাড়ি না। একইসাথে আগের বছর দুই দেশ রাজনৈতিক সমন্ধের ৭০ বছর সম্পূর্ণ করেছে। এই ৭০ বছর দুই দেশের শতাব্দী পুরানো বন্ধুত্ব ও আত্মীতা মজবুত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, বিশ্বে পরিবর্তন আসা খুবই সামান্য ব্যাপার কিন্তু ভারত ও রুশের সম্পর্কের মধ্যে বন্ধুত্ব কোনোদিন বদলায়নি। দুই দেশের সৎভাব সবসময় বজায় রয়েছে। দুই দেশের সম্পর্ককে মজবুত করার জন্য উদ্যোগ জগতের মুখ্য ভূমিকা রয়েছে। ভারতের সাথে রুশের বাণিজ্য লাগাতার বেড়ে রয়েছে। রুশ কোম্পানিগুলি ভারতে নিবেশ করতে পারে তারজন্য আলাদা ব্যাবস্থা করা হয়েছে।

S-400

 

জানিয়ে দি ভারত রুশের কাছে ৫ টি s-400 কেনার চুক্তি করেছে। এই s-400 ডিফেন্স মিসাইল ভারতে ইনস্টল করার পর চীনের মতো দেশও ভারতের বায়ুসেনার দিকে চোখ তুলে তাকাতে পারবে না। আমেরিকা ভারতকে s-400 কেনার থেকে আটকানোর সমগ্র প্রয়াস করেছিল কিন্তু নরেন্দ্র মোদী আমেরিকাকে কোনো তোয়াক্কা না করেই এই চুক্তি করে ফেলেছেন। কারণ মোদী আগেই সাফ জানিয়েছেন ভারত কারোর কাছে চোখ নামিয়েও থাকবে না, কারোর কাছে চোখ উচিয়েও থাকবে না, শুধু মাত্র চোখের সাথে চোখ দিয়ে বার্তা করবে, তাও ভারতের উপর কোনো দেশ প্রভাব ফেলতে পারবে না। এখন মোদীর বার্তার প্রতিচ্ছবি পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে।