Press "Enter" to skip to content

সকল হিন্দুদের কেন এক হওয়া প্রয়োজন শিকাগো থেকে তার দারুন যুক্তি দিলেন মোহন ভাগবত।

যদি আপনাকে প্রশ্ন করা হয় কোন জাতি বিশ্বে সবথেকে প্রতারিত ও অত্যাচারিত হয়েছে তাহলে এর সরল উত্তর হবে ধর্ম। অট্টাচারী বর্বর মুঘল থেকে শুরু করে ইংরেজরা জাতিকে শত শত বছর ধরে শোষণ করেছে। এমনকি আজকের দিনেও বাংলাদেশ, পাকিস্থানের মতো দেশে হিন্দুদের উপর অত্যাচারের ঘটনা প্রতিনিয়ত সামনে আসে। এর কারণ একটাই, হিন্দুদের একতার অভাব। বর্তমানে সঙ্ঘ প্রমুখ আমেরিকার শিকাগোতে আছেন। শিকাগোয় সম্মেলনে উনি তার বক্তব্য দিতে গিয়ে এমন কিছু কথা তুলে ধরেন যা আজ পুরো বিশ্বের হিন্দুদের ভাবিয়ে তুলেছে। ভাগবত বলেন জাতি আজ সবথেকে প্রতারিত তার কারণ হিন্দুরা একত্রিত নয়।ভাগবত বলেন যদি হিন্দুরা একত্রিত হয়ে থাকতো তাহলে ভারতের অখন্ডতায় কোনো আচঁ আসতো না। সমাজের মধ্যে প্রতিভাবান ব্যাক্তির সংখ্যা সবথেকে বেশি কিন্তু কখনোই এক হয় না।

যখন RSS হিন্দু যুবকদের এক হয়ে চলতে বলেন তখন জবাব আসে, ” সিংহ কখোনো দলবদ্ধ হয়ে চলে না।” ভাগবত বলেন হিন্দুদের এক হওয়া অবশ্যই দরকার কারণ একা সিংহকে দেখে জংলী কুকুররাও হামলা করে দেয় এবং সিংহের বিনাশ করে। এই কথা বলার সময় উনি রয়েল বেঙ্গল টাইগারের ও সিংহের সাথে জংলী কুকুরের তুলনা করেন। মোহন ভাগবত তার বক্তব্যের মাধ্যমে বুঝিয়ে দেন হিন্দুরা যখন যখন ভাগ ভাগ হবে তখন তখন ভারত দেশ বিভক্ত হয়েছে।

জানিয়ে দি, বিজেপির হিন্দুত্ববাদী নেতা RSS চিফ মোহন ভাগবতের কথাকে সমর্থন করেন এবং একতা হয়ে চলার কথা বলেন। দেশের দালাল মিডিয়া মোহন ভাগবতের কথায় ত্রুটি ধরতে শুরু করে দিয়েছে। আসলে মোহন ভাগবত বলেছেন একা সিংহ দেখে জংলী কুকুররাও আক্রমন করে। এই বক্তব্যকে মিডিয়া ঘুরিয়ে সাম্প্রদায়িক ও জংলী কুকুর কংগ্রেসকে বলেছে বলে দাবি করতে শুরু করেছে।

দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ডিজিটাল মিডিয়াকে কাজে লাগিয়ে দেশের যুব সমাজকে হিন্দুত্বের সাথে জুড়ে দেওয়ার জন্য প্রচেষ্টা চালানোর কথা বলেন। হিন্দুত্ব বিশ্বের সবথেকে প্রাচীন সংস্কার যার মাধ্যমে বিশ্বকে বর্তমানের সমস্যা থেকে মুক্তি দেওয়া সম্ভব বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। ডিজিটাল মাধ্যমের মধ্যে দিয়ে যদি সমাজকে হিন্দুত্ব সম্পর্কে জানানো হয় তাহলে এটা ভবিষ্যত পীড়ির জন্য একটা বড়ো উপহার দেওয়ার মতো হবে বলে দাবি করেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।