Press "Enter" to skip to content

“বাংলাদেশিরা অবৈধভাবে প্রবেশ করলে দেশভাগ কি জন্য করা হয়েছিল?”- সুব্রামানিয়াম স্বামী।

আসামের NRC ইস্যু নিয়ে রাজনীতির বিতর্ক তুঙ্গে। NRC এর লিস্ট বেরোনোর পর থেকে কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেস মোদী সরকারের সমালোচনায় নেমে পড়েছে। তবে অবৈধ বাংলাদেশিদের নিয়ে বাংলাদেশ যা প্রতিক্রিয়া দিয়েছে তাতে রাজনীতি আরো জেগে উঠেছে। আসলে বাংলাদেশ জানিয়েছে যে ভারতে অবৈধভাবে বসবাসকারী মানুষ বাংলাদেশের নয়। বাংলাদেশের দাবি যে তাদের দেশের আর্থিক অবস্থা ভালো তাই ভারতে কেউ বসবাস করতে পারে না। এটা ভারতের আন্তরিক ব্যাপার তাই এখানে আমরা নাক গোলাবো না। এই ব্যাপারে মন্তব্য করতে গিয়ে টুইট করে বলেন, “ভারতের বাংলাদেশকে সাফ বলা উচিত যে ভারতে থাকা অবৈধ বাংলাদেশিদের তোমরা ফিরিয়ে নাও নতুবা ১৯৪৭ এর সময় ভারতে থাকতে অস্বীকার করা মুসলিমদের জন্য ভারত যে জমি বাংলাদেশকে প্রদান করেছিল তা ফিরিয়ে দাও।”

এই টুইটের ভিত্তিতে ANI এর কাছে বক্তব্য রাখতে গিয়ে স্বামী বলেন, ” আসলে ইংরেজরা হিন্দু শাসিত ভারত ও মুসলিম শাসিত পাকিস্থান করে ভারতকে ভেঙেছিল। কিন্তু কংগ্রেস সেটা অস্বীকার করে বলে যে না আমরা হিন্দু শাসিত করবো না, আমরা সেকুলার(ধর্মনিরপেক্ষ দেশ) দেশ গঠন করবো। এখন অবৈধ ভাবে পাকিস্থানিরা ও বাংলাদেশিরা ভারতে ঢুকতে চাইছে, তাহলে দেশভাগ কি জন্য করা হয়েছিল?

এখন যদি অবৈধ বাংলাদেশিরা ভারতে থাকতে চাই তাহলে আমরা মুসলিমদের থাকার জন্য যে জমি দিয়েছিলাম সেটার কিছু অংশ কেড়ে নেওয়া হবে।”
আসলে স্বামী বুঝিয়ে দেন যে ধর্মের ভিত্তিতে দেশভাগ করে কট্টরপন্থী মুসলিমরা আলাদা আলাদা ভাবে ভারতকে টুকরো করে জমি নিয়েছিল। এখন যদি তারাই আবার ভারতে ঢোকার চেষ্টা করে তাহলে আমরা সেই দেশের কিছু জমি দখল করে নেব যাতে অবৈধ বিদেশিদের থাকতে দিতে পারি।

আপনাদের জানিয়ে রাখি, দেশের প্রায় প্রত্যেক রাজ্যে অবৈধ বাংলাদেশি মুসলিমরা ও রোহিঙ্গারা আস্তানা গেড়ে দেশের নিরাপত্তাকে বিঘ্নিত করছে। অন্যদিকে কংগ্রেস ও বামপন্থীরা ৬০ বছর ধরে নিজের ভোটব্যাঙ্কের জন্য এদেরকে ভোট দেওয়ার অধিকার প্রদান করে।