Press "Enter" to skip to content

যোগী সরকারের সাহসী পদক্ষেপ! ২০০ বছর পুরানো চার্চের জমি দখল করে নিলো সরকার, কারণ জানলে গর্বিত হবেন।

ধর্মনিরপেক্ষতার নামে কট্টরপন্থীরা দেশের আইন কানুনের অমান্য করে, এই অধিকার সেকুলার সরকারের রাজ্যে থাকতে পারে কিন্তু ের কাছে এমন হতে পারে না। কিছু মাস আগেই রাস্তার উপর গড়ে উঠা অবৈধ মসজিদকে ভেঙে ফেলার নির্দেশ দিয়েছিলেন । যারপর মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ সরকারের সাথে সহযোগিতা করে নিজেরাই কুম্ভ মেলার রাস্তায় পড়া মসজিদ ভেঙে দিয়েছিল। উত্তরপ্রদেশে ের মধ্যে শুধু মাত্র আইন কানুন চলবে এটা আরো একবার প্রমান করে দিলেন যোগী আদিত্যানাথ। যোগী আদিত্যানাথ আরো একবার বড়ো সিধান্ত নিয়েছেন। প্রয়াগের(এলহাবাদ) ২০০ বছর পুরানো চার্চের জমিকে দখল করে নিয়েছে। আসলে যোগী আদিত্যানাথ সরকারি জমিকে ফিরিয়ে নিয়েছে, চার্চ জমির উপর এখনো রয়েছে কিন্তু এখন জমি সরকারের হয়ে গেছে।

ইংরেজরা এই চার্চকে তৈরি করেছিল, চার্চের জমির লিজ ২০০ বছর সম্পুর্ন হয়েছে কিন্তু আগের সরকার জমি ফিরিয়ে নেয়নি কিন্তু যোগী সরকার জমিকে ফিরিয়ে নিয়েছে। ইংরেজরা সম্পূর্ন বিনামূল্যে এই জমিকে লিজ দিয়ে দিয়েছিল কিন্তু যোগী সরকার জমি ফিরিয়ে নিলো। যোগী সরকার জানিয়েছে লিজ শেষ হয়ে গেছে, আর লিজ শেষ তাই জমি এবার সরকারের। যোগী সরকারের এই সিদ্ধান্তে মিশনারি কট্টরপন্থী ও অর্বান নকশালীদের বিরোধ শুরু হয়ে গেছে।

কিন্তু যোগী সরকার কারোর কোনো বিরোধে কান না দিয়ে কড়া হাতে পদক্ষেপ নিয়ে নিয়েছে। যোগী সরকার চার্চের জমি ফেরত নেওয়ার সাথে সাথে সরকারি জমিতে কব্জা করে বসে থাকা ২৫ পরিবারকে সরে যাওয়ার নোটিস দিয়েছে। এই পরিবারগুলি লিজ করা জমির উপর বসতি বানিয়ে বাস করতে শুরু করেছিল।

যোগী সরকার সাফ করে দিয়েছে যে ধর্মনিরিপেক্ষতার নামে দেশকে লুটতে দেওয়ার পক্রিয়া বন্ধ। গতকাল খবর এসেছিল যোগী সরকার ৪০০০ মাদ্রসা উর্দু শিক্ষককে বরখাস্ত করে দিয়েছে এখন আরো একবার যোগী সরকার কট্টরপন্থীদের মুখে ঝামা ঘষে বড়ো পদক্ষেপ নিয়ে নিয়েছে। যোগী আদিত্যানাথের সরকার মিডিয়ার কাছে জানিয়েছিল আগের সরকার মুসলিম তোষণের জন্য মাদ্রাসায় বেশি বেশি করে উর্দু শিক্ষক নিয়োগ করেছিল কিন্তু আসলে এত শিক্ষকের প্রয়োজন নেই তাই আমরা এই শিক্ষকদের বরখাস্ত করা হয়েছে।