Press "Enter" to skip to content

মন্দির মেরামতের জন্য ৬০ কোটি, শক্তিপীঠের জন্য ১.৩ কোটি! যোগী আমলে হিন্দুদের জন্য আচ্ছেদিন।

এটা কেউ অস্বীকার করতে পারবে না যে স্বাধীনতার পর হোক বা স্বাধীনতার আগে হিন্দুদের শুধু শোষণ করে হয়েছে, লুটে নেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে ধৰ্মনিরপেক্ষতার নামে অন্য ধর্ম সম্প্রদায়ের মানুষদের তুষ্টিকরন করা হয়েছে। যোগীরাজে হিন্দুদের আচ্ছেদিন চলে এসেছে। এই প্রথম কোনো সরকারের আমলে হিন্দুরা তাদের অধিকার পাচ্ছে। ভোলার বিষয় নয় যে ভারতে ট্যাক্স শুধু মন্দিরগুলোই দেয়। আর সরকার যদি মন্দিরের উপর খরচা করে তাহলে সেটা অন্যায় কিছু নয়।উত্তেপ্রদেশ মন্দিরের মেরামতের জন্য ৬০ কোটি টাকা ঘোষণা করে দিয়েছে। মন্দির তহবিলে এই টাকা রাখা হবে যার মাধ্যমে মন্দিরের মেরামত করা হবে।

এটা বিশাল কোনো অর্থ নয় কিন্তু তথাকথিত ধর্মনিরপেক্ষ বাদীদের শিক্ষা দেওয়া এটা শুধুমাত্র আরম্ভ প্রক্রিয়া। আগত দিনে আরো অর্থ অবন্ঠিত করা হবে। এছাড়াও সরকার ৩ শক্তিপীঠের জন্য ১ কোটি ৩০ হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। এই শক্তিপীট গুলির প্রাথমিক সুবিধার ভলভাবে খেয়াল রাখা হবে- মেরামত, বিদুৎ, টয়লেট, পানীয় জল এই সমস্তকিছুর উপর খেয়াল রাখা হবে।

এছাড়াও কুম্ভ মেলার জন্য সরকার আজ পর্যন্ত সবথেকে বেশি টাকা খরচ করতে চলেছে। কুম্ভমেলাকে আন্তর্জাতিক মেলা করার জন্য ইতিহাসে সবথেকে বেশি খরচ করতে চলেছে, কুম্ভ মেলার পথে যে সমস্ত সড়ক পড়ে সেই সমস্থ সড়ক চওড়া করার কাজ প্রায় সম্পুর্ন। ের সরকার হিন্দু ও হিন্দু উৎসবের যথেষ্ঠ খেয়াল রাখছে কিন্তু সেকুলারপন্থী পার্টিগুলি এই নিয়ে প্রচন্ড অসন্তোষ প্রকাশ করেছে।

যদিও সেকুলারপন্থীদের অসন্তোষ প্রকাশে সরকারের কিছু যায় আসে না এটা সাফ করে দিয়েছেন যোগী আদিত্যানাথ। মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যানাথ বলেছেন, এটা হিন্দুত্বের যুগ আর যদি কেউ হিন্দুত্বকে চ্যালেঞ্জ করে তাহলে তাকে মহাপ্রলয়ের সম্মুখীন হতে হবে।