এবার সবার সামনে ক্ষমা না চাইলে বিরাট সমস্যায় পড়তে পারে কংগ্রেস কারণ ..

বর্তমানে নবজ্যত সিং সিদ্ধু বিগত কয়েক মাস ধরেই খুব সমালোচনায় রয়েছে ! তিনি বার বার জনতা ও মিডিয়ার মুখে পড়েছেন কেবলমাত্র নিজের পাকিস্থান প্রেমের জন্য !কিছু দিন আগে সিধু পাকিস্তান গিয়ে সেখানে ভারতবর্ষের নামে অনেক বাজে মন্তব্য করে এসেছেন। যে ভারতীয় সেনাবাহিনী কে প্রতিটি ভারতবাসী নিজের মা এর মত সম্মান করেন, উনি সেই ভারতীয় সেনাবাহিনী কে খারাপ মন্তব্য করেছেন অপরদিকে পাকিস্তানী সেনাবাহিনী কে উনি ভালোর তকমা দিয়েছেন। ওনার মতে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর তুলনায় পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী অনেক গুন ভালো, তিনি সেখানে সেই ব্যক্তির সাথে ছবি তোলেন যিনি জঙ্গি সংগঠন এর সাথে যুক্ত ও সর্বদা ভারত বিরোধী মন্তব্যর জন্য বিখ্যাত ! এটা স্পষ্ট যে, উনি হলেন একজন পাকিস্তান প্রেমী ব্যাক্তি যিনি পাকিস্তান কে খুশি করতে ভারতবর্ষের নামে খারাপ মন্তব্য করতেও পিছু পা হন না।সিধু যেমন নিজে একজন পাকিস্তান প্রেমী তাই উনার সমর্থকরাও যে পাকিস্তানপ্রেমী হবেন সেটা বলা বাহুল্য। আর তেমনি এইদিন সিধুর নির্বাচনী জনসভায় দেখা গেল এক ব্যাক্তি স্লোগান দিচ্ছেন “পাকিস্তান জিন্দাবাদ।”

navjot singh sidhu

আর সেই ভিডিওটি সবার সামনে তুলে ধরে জি-নিউজ। ভিডিও টি ভাইরাল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই নিজেদের দোষ ঢাকার জন্য নভোজ্যত সিং সিধু দাবি করেন যে সেই ভিডিওটি মিথ্যা। সেই সাথে উনি নিজের হুশ খুইয়ে জি-নিউজ এর বিরুদ্ধে অসভ্য ভাষা ব্যবহার করে বলেন যে “এমন শিক্ষা দেব জি-নিউজকে যে ওদের নিজেদের দিদিমার নাম মনে করিয়ে দেওয়া হবে।”এরপরে এই ভিডিও ক্লিপিং নিয়ে নির্বাচন কমিশনের কাছেও অভিযোগ জানানো হয় কংগ্রেসের তরফে। তারা অভিযোগ জানিয়ে দাবি করেন যে, জি-নিউজ কংগ্রেসের বিরুদ্ধে মিথ্যা ভিডিও দেখিয়ে রাজস্থানের নির্বাচনে কংগ্রেসের ভোট ব্যাংক কে প্রভাবিত করছে। কিন্তু জি-নিউজও ছেড়ে দেওয়ার পাত্র নয়, তারা যে সঠিক ভিডিও ফুটেজ দেখিয়েছিল সেটা তারা প্রমান করার কথা জানায় নির্বাচন কমিশন কে। অবশেষে জি-নিউজ প্রমাণ করে দিল যে সেইদিনের সেই ভিডিওটিতে কোনোরকম এডিট ছিল না, পুরো ভিডিওটিই সত্যি।

navjot singh sidhu with rahul gandhi

আর এই ভিডিও এর সত্যতা প্রমাণ করার পর জি-নিউজের তরফে সরাসরি কংগ্রেস কে চ্যালেঞ্জের সুরে বলা হয়েছে যে, যাতে জনসমক্ষে কংগ্রেস দু-দিনের মধ্যে ক্ষমা চায় জি-নিউজের কাছে। যদি কংগ্রেস এটা না করে তাহলে কংগ্রেসের বিরুদ্ধে আইনি পথে হাঁটার কথাও জানিয়ে রাখা হয়েছে জি-নিউজের তরফে। তারা জনিয়েছেন যে কংগ্রেস বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করা হবে আদালতে। আর সেইজন্য ক্ষমা চাওয়ার সময় সীমা শেষ হওয়ার আগে জি-নিউজের তরফে এই কথা আরও একবার মনে করিয়ে দেওয়া হল কংগ্রেস কে। ইতিমধ্যেই এই ব্যাপারে সমস্তরকম ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জি-নিউজের তরফে জানিয়ে রাখা হয়েছে “নিউজ ব্রডকাস্ট এসোসিয়েশন কে।

আর এখন এটাই দেখার বিষয় যে, কংগ্রেস কি তাদের ভুল স্বীকার করে নিয়ে ক্ষমা চেয়ে নেন, নাকি কংগ্রেসের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হয় জি-নিউজের তরফে।কারণ এর আগেও আমরা অনেকবার দেখেছি রাজনৈতিক দলের বিরুদ্ধে মিডিয়া কে আদালতে যেতে।উদাহরণ হিসেবে , আমেরিকার প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে মার্কিন সংবাদ সংস্থা আদালতে মামলা করেছিল।

#অগ্নিপুত্র

Leave a Reply

you're currently offline

Open

Close