Press "Enter" to skip to content

বিক্রি কমছে Zomato এর, বৃদ্ধি পেয়েছে ক্যান্সেলিংয়ের পরিমান: দাবি সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সোশ্যাল মিডিয়াতে ZOMATO-র সেই অবস্থা হবে যা কিছুদিন আগে snapdeal এর হয়েছিল।ZOMATO এর বিরুদ্ধে দেশের লোক এবার একজোট হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করা হচ্ছে। জানিয়ে দি, সম্প্রতি এক হিন্দু গ্রাহক ZOMATO এর কাছে অনুরোধ করেছিল যে তার ওখানে শ্রাবন চলছে তাই মুসলিম রাইডারের জায়গায় কোনো হিন্দু রাইডার যাতে পাঠানো হয়, এই কথা শুনে zomato সেই গ্রাহককে সেকুলারিজম এর জ্ঞান  দিয়েছিল এবং তার অর্ডার ক্যানসেল করে দিয়েছিল আর তার টাকাও ফেরত দেয়নি।

এরপর সোশ্যাল মিডিয়াতে ZOMATO এর দ্বিচারিতা রূপ সামনে এসে যায়। ZOMATO এর আগে মুসলিম গ্রাহকদের নিয়ে আলাদাই মনোভাব দেখতো কিন্তু হিন্দু গ্রাহকদের ZOMATO লাল চোখ দেখায় বলে অভিযোগ সামনে আসে। সোশ্যাল মিডিয়াতে Zomato এর পর্দাফাঁস হয়ে যায় তারপর ট্রেন্ড হতে থাকে “boycottZOMATO” লোকেরা বড় মাত্রায় zomato কে ফোন থেকে আনইনস্টল শুরু করে দেয়। দাবি করা হচ্ছে zomato এর অর্ডার ক্যান্সেলেশন এর হার প্রচুর পরিমাণে বেড়ে গেছে।

অনুমান লাগানো হচ্ছে যে zomato এর বিক্রি এ অনেক কমতি হয়েছে আর অর্ডার ক্যান্সেলেশনও অনেক বেড়ে গেছে এবং এই বিষয়টি নিয়ে কোম্পানি অনেক চাপে এসে গেছে ও ২দিনে কোম্পানির দাম্ভিকতা বার করা শুরু হয়ে গেছে। একজন গ্রাহক একটি চ্যাটের স্ক্রিনশটও পোস্ট করে যেখানে Zomato মাথানত করে হিন্দু রাইডার পাঠানোর কথা মেনে নেয়। জনগণ Zomato কে ক্ষমা করার মুডে নেই। zomato কিভাবে চীনের থেকে ফান্ডিং নিয়ে ভারতে ব্যাবসা চালাচ্ছে তার উপরেও চর্চা শুরু হয়েছে।

আসলে zomato তে অনেক বেশি মাত্রায় বিদেশি কোম্পানিরা টাকা লাগিয়েছে, আর চীনের বড় কোম্পানি আলিবাবা zomato তে ২০০ মিলিয়ন আমেরিকি ডলার ইনভেস্ট করেছে। অনেকে বলেছেন যদি zomato এর ক্ষতি হয় তবে সোজাসুজি চীনেরও ক্ষতি হবে। যেই ভাবে সোশ্যাল মিডিয়াতে zomato কে নিয়ে ট্রেন্ড চলছে, সেকুলারিজম এর জ্ঞান দেওয়ার পর কোনো সেলস বৃদ্ধি পাওয়া তো দূর,উল্টে হিন্দুরা একজোট হয়ে গিয়ে zomato এর অবস্থা খারাপ করে দিয়েছে।